ওয়েবসাইট কি? ওয়েবসাইটের প্রকারভেদ সহ বৈশিষ্ট্য ও সুবিধাসমূহ!

by admin
178 views

প্রতিনিয়ত আমরা ওয়েবসাইট থেকে কত কিছুই না জেনে থাকি, আজ নাহয় ওয়েবসাইট সম্পর্কেই সামান্য একটু জেনে নিই।

প্রতিদিন আমরা কোনো না কোনো ওয়েবসাইট ভিজিট করে থাকি আমাদের নিত্য প্রয়োজনে। আমাদের অনেক প্রশ্ন থাকতে পারে যেমনঃ ওয়েবসাইট কী? কতপ্রকার? কী কী?

• ওয়েবসাইট (Website) কী
ওয়েবসাইট হচ্ছে কোন ওয়েব সার্ভারে রাখা ওয়েব পৃষ্ঠা, ছবি, অডিও, ভিডিও ও অন্যান্য ডিজিটাল তথ্যের সমষ্টি।  যা ইন্টারনেট সংযোগের মাধ্যমে access করা যায়। প্রত্যেকটি ওয়েবসাইটের একটি ইউনিক নাম থাকে। এছাড়াও আমরা এভাবে বলতে পারি, একই ডোমেনের অধীনে একাধিক ওয়েবপেইজের সমষ্টিকে ওয়েবসাইট বলে।

• ওয়েবপেইজ (Webpage) কী?
ইন্টারনেট তথা ওয়েবে কোন লেখা, ওডিও, ভিডিও, স্থির চিত্র, এনিমিশন ইত্যাদি তথ্যসমুহ রাখার জন্য যে পেইজ (page) ব্যাবহৃত হয় তাকে ওয়েবপেজ বলে। অর্থাৎ ওয়েব সাইট অন করার পরে যে পেইজটি প্রদর্শিত হয় সেটি হলো হোম পেইজ। হোম পেইজে আবার অনেকগুলো পেইজের লিংক দেয়া থাকে যেমনঃ যোগাযোগ, লগইন, ওয়েবসাইটের তথ্য ইত্যাদি।
ওয়েবসাইট কিংবা ওয়েবপেইজ সম্পর্কে আমরা জানলাম, ওয়েব পোর্টাল সম্পর্কে জানিতো? এবার অবশ্য বুঝেই গেছেন কি নিয়ে কথা বলবো, হ্যা, ওয়েব পোর্টাল নিয়েই এবার কিছু জানবো।

• ওয়েব পোর্টাল ( Web Portal) কী?
ওয়েব পোর্টাল হলো একটি ওয়েবসাইট বা ওয়েবসাইটের সমষ্টি যেখানে অনেকগুলো উৎস থেকে গুরুত্বপূর্ণ লিংক, কন্টেন্ট ও সার্ভিস সংগ্রহিত থাকে।  যা ব্যবহারকারিদের সহজবোধ্যভাবে তথ্য উপস্থাপন করে। উইকিপিডিয়া কিন্তু সেই দিক দিয়ে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ওয়েব পোর্টাল।

• ওয়েব ব্রাউজার ( Web Browser)
যেকোনো ওয়েবসাইট ভিজিট করার জন্য আমাদের যেমন ইন্টারনেট সংযোগের প্রয়োজন তেমনি একটি ব্রাউজারও প্রয়োজন।  যা দিয়ে আমরা কোন সাইট এক্সেস করতে পারবো। এই ওয়েব ব্রাউজার মুলত ডেটা রিড ও অনুবাদ করে ক্লায়েন্টকে ফলাফল প্রদর্শন করে। যেমনঃ গুগল ক্রোম, মজিলা ফায়ারফক্স ইত্যাদি।

• ওয়েবসাইটের প্রকারভেদ
গঠন বৈচিত্র‍্যের ওপর ভিত্তি করে ওয়েবপেইজ বা ওয়েবসাইটকে সাধারণত দুইপ্রকার হয়ে থাকে।
১. স্ট্যাটিক ওয়েবপেইজ বা স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট (Static Webpage or Static Website).
২. ডায়নামিক ওয়েবপেইজ বা ডায়নামিক ওয়েবসাইট (Dynamic Webpage or Dynamic Website).

• স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট (Static Website)
যে সকল ওয়েবসাইটের ডেটার মান ওয়েবপেইজ  প্রদর্শন করার পর পরিবর্তন করা যায় না তাকে স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট বলে। স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট তৈরির জন্য স্ক্রিপ্টিং ভাষা ব্যাবহার করা যায় না। HTML, CSS, JAVASCRIPT দিয়ে সাধারণত একটি স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট তৈরি করা হয়।

• স্ট্যাটিক ওয়েবসাইটের বৈশিষ্ট্যঃ
১. খুব দ্রুত লোড হয়।
২. ডেটাবেজ এর সাথে সংযোগ থাকে না।
৩. কন্টেন্ট নির্দিষ্ট থাকে।
৪. ব্যাবহারিক তথ্য আপডেট করতে পারে না।
৫. HTML, CSS, JS দিয়ে এটি ডিজাইন করা হয়ে থাকে।

• স্ট্যাটিক ওয়েবসাইটের সুবিধাঃ
১. নিয়ন্ত্রণ সহজ এবং সহজে পরিচালনা করা যায়।
২. খরচ কম এবং সাইট খুব দ্রুত লোড নেয়।
৩. নেট স্পিড কম হলেও দ্রুততার সাথে ডেটা ডাউনলোড করা যায়।
৪. সহজে ওয়েবপেইজের লে-আউট পরিচালনা করা যায়।

• স্ট্যাটিক ওয়েবসাইটের অসুবিধাঃ
১. কন্টেন্ট আপডেট করতে প্রচুর সময় লাগে।
২. ওয়েবসাইটের আকার বৃদ্ধির সাথে সাথে কন্টেন্ট নিয়ন্ত্রণ করা ঝামেলা ও কঠিন হয়ে যায়।
৩. ব্যবহারকারির ইনপুট নেয়ার কোনো ব্যবস্থা থাকে না।
৪. নতুন কোনো পেইজ যুক্ত করতে হলে সেই পেইজের জন্য আলাদাভাবে কোডিং করতে হয়।

• ডায়নামিক ওয়েবসাইট (Dynamic Website)
যে সকল ওয়েবসাইটের ডেটার মান ওয়েবপেইজ  প্রদর্শন করার পর পরিবর্তন করা যায় তাকে ডায়নামিক ওয়েবসাইট বলে। ডায়নামিক  ওয়েবসাইট তৈরির জন্য স্ক্রিপ্টিং ভাষা যেমনঃ PHP,ASP, Python  ব্যাবহার করা হয় এবং ওয়েবপেইজটি ডিজাইনের জন্য HTML, CSS, JAVASCRIPT ও ব্যবহার করা হয়। এর পাশাপাশি ডেটাবেজেরও (SQL/ MYSQL) প্রয়োজন পড়ে।

• ডায়নামিক ওয়েবসাইটের বৈশিষ্ট্যঃ
১. পরিবর্তনশীল তথ্য বা ইন্টারঅ্যাকটিভ ওয়েবপেইজ তৈরি করা।
২. রানটাইমের সময় পেইজের ডিজাইন বা কন্টেন্ট পরিবর্তন হতে পারে।
৩. ডেটাবেজ ব্যবহৃত হয়।
৪. ব্যবহারিক তথ্য আপডেট করতে পারে।

ডায়নামিক ওয়েবসাইটের সুবিধাঃ
১. অনেক বেশি তথ্য বহুল হতে পারে।
২. তথ্য ও বিষয়বস্তু খুব দ্রুত আপডেট করা যায়।
৩. নির্ধারিত ব্যবহারকারীদের জন্য নির্ধারিত পেইজ প্রদর্শন করা যায়।
৪. ব্যবহারকারীদের জন্য নির্দিষ্ট পরিমাণ এক্সেস সেট করা যায়।
• ডায়নামিক ওয়েবসাইটের অসুবিধাঃ
১. খরচ বেশি।
২. নিয়ন্ত্রণ ও উন্নয়ন করা তুলনামূলক জটিল ও কঠিন।
৩. তথ্য হ্যাক এর সম্ভাবনা থাকে।
৪. ডেটাবেজ ব্যবহার করার জন্য ডেটা লোড হতে সময় বেশি লাগে।

• আবার অবস্থানের ওপর ভিত্তি করে ওয়েবপেইজ বা ওয়েবসাইট দুই প্রকার।
১. লোকাল ওয়েবপেইজ (Local Webpage)
2. রিমোট ওয়েবপেইজ (Remote  Webpage)

লোকাল ওয়েবপেইজ (Local Webpage):
স্থানীয়ভাবে ডিজাইন করা ওয়েবপেইজ গুলোকে লোকাল ওয়েবপেইজ বলা হয়। লোকাল ওয়েবপেইজগুলো সাধারণত সোর্স ড্রাইভ ও ডিরেক্টরি থেকে সহজে ব্যবহার করা যায়। এধরনের ওয়েবপেইজ ব্যবহারের জন্য ইন্টারনেট সংযোগের প্রয়োজন পড়ে না।

রিমোট ওয়েবপেইজ (Remote Webpage):
স্থানীয় কম্পিউটার ব্যতীত অন্য কোনো কম্পিউটার বা সার্ভারে সংরক্ষিত ওয়েবপেইজ গুলোকে রিমোট ওয়েবপেইজ বলা হয়। রিমোট ওয়েবপেইজ ডাউনলোড করার জন্য ইন্টারনেট সংযোগের প্রয়োজন।  এ ধরনের ওয়েবপেইজ ব্যবহারের জন্য ওয়েব এড্রেস জানার প্রয়োজন পড়ে।  এরুপ এড্রেসকে URL(Uniform Resource Locator) বলা হয়।

এছাড়াও ব্যাবহারের ভিত্তিতেও ওয়েবসাইটের শ্রেণিবিভাগ করতে পারি। যেমনঃ

. আর্কাইভ সাইট (Archive Site):  পুরনো বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ তথ্যাদি সকলের ব্যবহারের জন্য জমা রাখা হয়।
. ই-কমার্স সাইট (E-commerce Site): পণ্য কেনা-বেচার জন্য তৈরি করা হয়।
. নিউজ সাইট (News Site): এসব সাইটে বিভিন্ন ধরনের খবরা-খবর পাওয়া যায়।
. ব্লগ সাইট (Blog Site): বিভিন্ন ওয়েবসাইটে বিভিন্ন জিনিশ ভিত্তিক কন্টেন্ট পাওয়া যায়।
. ডাউনলোড সাইট (Download Site): বিভিন্ন ধরনের ফাইল, সফটওয়্যার, পিডিএফ ইত্যাদি ডাউনলোড করা যায়।
. পোর্টফলিও সাইট (Portfolio Site): নিজের সম্পর্কে বিভিন্ন ইনফরমেশন থাকে। যাতে করে সাইটের ভিজিটর যার পোর্টফলিও তার সম্পর্কে জানতে পারে। ইত্যাদি।
এমন  আরো অনেক রকমের সাইট ইন্টারনেট জগতে রয়েছে।

আজকে এই পর্যন্তই।  আশা করি আপনি আমার পোস্ট থেকে কিছুটা হলেও উপকৃত হয়েছেন। ভবিষ্যতে এমন আরো জানা, অজানা তথ্য পাওয়ার জন্য IT Protidin এর পাশে থাকবেন। ধন্যবাদ!

4 comments

tawhid April 6, 2020 - 3:32 am

সময় উপযোগী পোষ্ট দেয়ার জন্য ধন্যবাদ।

Reply
admin April 6, 2020 - 6:03 am

অনুপ্রেরণা ভাই 😍

Reply
Sareek Shahriar April 8, 2020 - 11:09 pm

অসাধারণ,,, এমন অনেক তথ্য আছে যা আমাদের জানা উচিৎ,, কিন্তু সঠিক সোর্সের অভাবে জানা হয়ে উঠেনি,,,আরো এমন সুন্দর তথ্য চাই

Reply

Leave a Comment