Free Fire এবং Pubg

অবশেষে অভিভাবকদের চিন্তার অবসান ঘটিয়ে বন্ধ হতে যাচ্ছে Free Fire এবং Pubg!

by admin
106 views

“অবশেষে অভিভাবক এবং নিতানির্ধারকদের চিন্তার অবসান ঘটিয়ে বন্ধ হতে যাচ্ছে Free Fire এবং Pubg” মানবজমিনের রিপোর্টে বলা হয়েছে, “ফ্রি ফায়ার এবং পাবজি আজ থেকে বাংলাদেশে নিষিদ্ধ ঘোষনা করা হলো – শিক্ষা মন্ত্রনালয়।”

অন্যদিকে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনে এ ব্যাপারে সুপারিশ করেন শিক্ষা মন্ত্রনালয় এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়। আলোচনায় তরুন-তরুনীদের এ দুই গেমের আসক্তি নিয়ে চিন্তিত সবাই এমনকি হঠাৎ করে গেম দুটি বন্ধ করে দিলেও বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে তরুন-তরুনীদের মাঝে। তাই বিকল্প পদ্ধতিতে গেম দুটি বন্ধের উদ্যোগ নেওয়া হবে। এমনকি ভিপিএন দিয়েও যেন গেম দুটি না খেলতে পারে তার যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অন্যদিকে নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টাচার্চে বন্ধুক নিয়ে মসজিদের মুসলমানদের উপর হত্যাকান্ড পাবজির সাথে অনেকেই তুলনা করেন। সম্প্রতি নেপালে পাবজি গেম দেশটির আদালত এমনকি ভারতের গুজরাটের আদালতও পাবজি গেম খেলার উপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়। এর আগে বাংলাদেশও পাবজি গেমকে সাময়িকভাবে বন্ধ করা হলেও আবার চালু করে দেওয়া হয়।

হ্যাকারদের থেকে রক্ষা করুন আপনার ফোন!

বর্তমানে করোনা মহামারীতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় অনলাইন ক্লাসে অংশগ্রহণের জন্য অভিভাবকগন উনাদের সন্তানদেরকে মোবাইল ফোন এবং লেপটপ হাতে তুলে দিতে হচ্ছে। যার ফলে অল্পবয়সী কোমলমতি শিক্ষার্থীরা ডাটা সহজলভ্যভাবে হাতের নাগালে পাওয়ায় এবং দ্রুতগামী ব্রডব্যান্ড পাওয়া ফ্রি-ফায়ার এবং পাবজি গেম খেলার আসক্তি তাদের ক্রমশই বৃদ্ধি পাচ্ছে।

সাম্প্রতিক সময়ে ২১শে মে চাঁদপুরে মামুন নামে ১৪ বছরের এক তরুন মায়ের কাছে ৫০ টাকা চায় পাবজি গেম খেলার জন্য ডাটা কিনতে কিন্তু মা টাকা না দিলে ছেলেটি মায়ের উপর অভিমান করে আত্মহত্যা করে।

বিশ্লেষকদের মতে, “অতিরিক্ত অনলাইন গেম এমনকি Free Fire এবং Pubg গেম এ আসক্তির কারনে তরুন-তরুনীদের মারাত্মক স্বাস্থ্য ঝুঁকি দেখা দিবে। এমনকি তাদের মাঝে সামাজিকভাবে মিথস্ক্রিয়া হৃাস পাচ্ছে। যার ফলে আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম ধ্বংসের দিকে চলে যাচ্ছে। এজন্য ফ্রি- ফায়ার এবং পাবজি গেম বন্ধ এখন সময়ের দাবী।”

টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয় বলেন, বিশেষ করে করোনা মহামারির ফলে স্কুল, কলেজ, ও বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকার ফলে অন্যদিকে অনলাইনভিত্তিক ক্লাস হওয়ার ফলে অভিভাবকরা তার সন্তানদের হাতে সহসাই ল্যাপটপ, মোবাইল ডিভাইস তুলে দিতে বাধ্য হচ্ছে।

IT Protidin এর সাথেই থাকুন।

Related Posts

Leave a Comment